বিবাহ কথাটির অভিধানিক অর্থ পুরুষ ও নারীর স্বামী-স্ত্রী হিসাবে জীবনযাপন করার সামাজিক বিধি। পৃথিবীর সব দেশের, সব সমাজের, মুসলিম তথা সব সম্প্রদায়ের মানুষের মধ্যে সৃষ্টিলগ্ন থেকে এই সামাজিক প্রথা চলে এসেছে যা আজও বর্তমান।

বিয়ের পাত্র পাত্রী নির্বাচন নিঃসন্দেহে কঠিন থেকে কঠিনতম একটি কাজ। সারা জীবনের সাথে যাকে জড়ানো হবে তাকে নির্বাচন করাটা আর যাই হোক না কেন, সহজ ব্যাপার নয়। আমাদের দেশে যখন ছেলে মেয়েরা বিয়ের জন্য উপযুক্ত হয়, তখন থেকেই ভালো ছেলে বা মেয়ের জন্য তারা উন্মুখ হয়ে থাকেন। অনেক পরিবারে মেয়েদের জন্য ভালো পাত্রের সন্ধান অনেক আগে থেকেই শুরু হয়। ঘটক ছাড়াও আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধবের দ্বারাও পাত্র-পাত্রী খুঁজে থাকেন অনেকে। বিয়ের আয়োজনের প্রথমেই আসে জীবনসঙ্গী নির্বাচন।

১. সততাই সুখের চাবিকাঠি

জীবনসঙ্গী হিসেবে পাশে দরকার একজন সৎ মানুষকে।যোগ্য জীবনসঙ্গী নির্বাচনে নারী পুরুষ উভয়েরই সততা ও বিশ্বস্ততার গুণটি রয়েছে কিনা দেখে নেয়া উচিত। কারণ একজন সৎ মানুষ নির্লোভ, স্বার্থহীন, ভালো মানুষ হন। এতে করে সংসারে আসবে সুখ ও সমৃদ্ধি। সততা ও বিশ্বস্ততা সম্পর্কে আশ্বস্ত হতে পাত্র/পাত্রীর আশেপাশের মানুষ ও কর্মক্ষেত্রে খবর নিতে পারেন।

২. শিক্ষা- দীক্ষায় প্রাধান্য

শিক্ষার সঙ্গে জড়িত থাকে পাত্রের ক্যারিয়ার। এখানে অর্থনৈতিক নির্ভরশীলতার একটা বিষয় থাকে। তাই শিক্ষাক্ষেত্রকে প্রাধান্য দিতেই হবে। আর একজন শিক্ষিত মা সন্তানকে সুশিক্ষিত করতে পারেন, সংসার ব্যবস্থাপনায় একজন শিক্ষিত নারী হয়ে থাকেন পারদর্শী। তাই পাত্রী নির্বাচনেও প্রাধান্য দিতে হবে শিক্ষার ক্ষেত্রটিতে। অনেক সময় দেখা যায় বেকার ছেলের কাছে কেউ মেয়ে বিয়ে দিতে চায় না, বিশেষ করে প্রেমের বিয়ের ক্ষেত্রে এই বিষয়টি লক্ষণীয়। এমতঅবস্থায় অভিবাবকদের উচিত বিয়েতে বাধা প্রদান না করে ছেলেটি ভবিষ্যতে ভালো কিছু করার মত যথেষ্ট পরিপক্ক কিনা সেদিক বিবেচনা করা।


৩. বয়সের ব্যবধানে গুরুত্ব

আজকাল অনেকে এই বিষয়টিকে গুরুত্ব দেন না। সমবয়সি কিংবা পাত্রী বড়ও বিয়ে করে থাকেন। কিন্তু স্বাভাবিক নিয়ম অনুযায়ী পাত্রের পাত্রীর চাইতে ৩-৫ বছরের বয়সের পার্থক্য থাকা উচিত। কারণ সাইকোলজিস্টদের মতে মেয়েদের তুলনায় ছেলেদের ম্যচিউরিটি একটু দেরিতে আসে।

৪.ক্যারিয়ার ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা

কন্যাকে পাত্রস্থ করার সময় আমরা পাত্রের ক্যারিয়ারটার দিকেই নজর দিয়ে থাকি বেশি। বর্তমান ক্যারিয়ারের পাশাপাশি ক্যারিয়ার ভিত্তিক চিন্তা ভাবনা, যোগ্যতা এবং উজ্জ্বল ভবিষ্যতটাও দেখা উচিত। কারণ যে ছেলে বা মেয়েটি আজ সুপ্রতিষ্ঠিত নন নিজের যোগ্যতায় ভবিষ্যতে প্রতিষ্ঠিত হতে পারেন।

৫. দেহ ও মনের সুস্থতা

অনেকেই শুধুমাত্র বাহ্যিক সৌন্দর্যের কারণে পাত্র/পাত্রী পছন্দ করে ফেলেন। কিন্তু বিয়ের আগে শারীরিক সুস্থতা নিয়ে সচেতন হওয়া উচিত দুপক্ষেরই। এর মানে এই নয় যে সাধারণ বিষয় ধরে বসে থাকা উচিত। পাত্র পাত্রী দুইজনকেই শারীরিকভাবে সুস্থ হতে হবে তা না হলে পরবর্তীতে এর প্রভাব আপনার সাংসারিক জীবনেও পড়তে পারে। ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কথা চিন্তা করে বিয়ের আগে ছেলে মেয়ে উভয়েরই প্রয়োজনীয় কিছু মেডিকেল টেস্ট করানো উচিত।

৬.আকর্ষণীয় ব্যক্তিত্ব

একজন মানুষের কথা বার্তা এবং চাল চলনে অনেক কিছুই প্রকাশ পায়। পাত্র/পাত্রী নির্বাচনের সময় অবশ্যই লক্ষ্য রাখবেন পাত্র/পাত্রী ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন কিনা। কারণ সৌন্দর্য থাকলেও ব্যক্তিত্ব না থাকলে মানুষের সৌন্দর্য মলিন হয়ে যায়। বিয়ের আগে জীবনসঙ্গীর মানবিক মূল্যবোধ কতোটা ভালো তা পরীক্ষা করে দেখা দরকার। কারণ নিজের চাইতে ছোট এবং পজিশনের ছোট মানুষের প্রতি তার আচরণ খারাপ হলে তার মানসিক এবং মানবিক মূল্যবোধ না থাকারই কথা। তাই বিয়ের আগে খোঁজ নিতে হবে মানবিক মূল্যবোধের।

৭. রসবোধ ও হাসিখুশি মেজাজ

অনেকেই আছেন অনেক গম্ভীর মেজাজের হয়ে থাকেন কিন্তু তার মধ্যে কিছুটা হলেও রসবোধ থাকে। কিন্তু যারা সত্যিকার অর্থেই একেবারে গম্ভীর তাদের সঙ্গে সংসার করা এবং সময় কাটানো বেশ কঠিন।

৮. মনের মিল খোঁজা

বিয়ের আগেই দেখে নিন আপনাদের মধ্যে মিলটা কতোখানি। আপনারা কী একই ধরনের চিন্তা করেন কিনা বা একই আদর্শে বিশ্বাসী কিনা। কারণ একজন অনেক খোলামেলা মনের অধিকারী হয়ে সংকীর্ণ মনমানসিকতার মানুষের সঙ্গে সংসার টিকিয়ে রাখতে পারবেন না।


৯. পছন্দ এবং শখ

একজন মানুষকে বুঝতে হলে সবচাইতে জরুরি তার শখ এবং পছন্দ সম্পর্কে জেনে নেয়া। মানুষের ব্যক্তিত্বের প্রতিচ্ছবি তার শখের মাধ্যমেই প্রতিফলিত হয়। এবং সেই সঙ্গে তার পছন্দ অপছন্দও অনেকটা প্রকাশ করেন তিনি মানুষ হিসেবে ঠিক কেমন।তবে এক সুতোয় গাথা এবং একসঙ্গে পথ চলতে গেলে মিল-অমিল, চাওয়া-পাওয়ার না মেলা হিসেব থাকবেই। সবার আগে নজর দিতে হবে হাজারো ঝড়ঝাপটায় পারস্পরিক বোঝাপড়ার দিকে।

১০.পারিবারিক খোঁজ- খবর যাচাই

সব কিছু ঠিকঠাক থাকার পর ও অনেকের দাম্পত্য জীবনে শুধুমাত্র পরিবারের অন্নান্য সদস্যের কারণে কলহ লেগেই রয়েছে । তাই অভিবাবকদের উচিত শিক্ষিত ও ভদ্র পরিবার, যার সদসদের স্বভাব চরিত্র ভালো সেখানে পাত্র পাত্রী খোঁজ করা।

১১. সোশ্যাল মিডিয়া কার্যক্রম যাচাই

বর্তমান তথ্য প্রযুক্তির যুগে প্রায় সকলেই কম বেশি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলো ব্যবহার করে থাকেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন কার্যক্রম দেখে অনেক সময় মানুষের স্বভাব- চরিত্র , চাল-চলন , মেলামেশা সম্পর্কে বাস্তব ধারণা পাওয়া যায়।

১২. আবেগের বর্শবর্তী না হওয়া

আপনি যদি প্রেমের মাধ্যমে আপনার সঙ্গী নির্বাচন করে থাকেন, তাহলে মনে রাখবেন, বিয়ে হচ্ছে ভালোবাসার একটি সুন্দর পরিনতি। কিন্তু শুধুমাত্র ভালোবাসার সর্ম্পকের কারনেই বিয়ে করা ঠিক নয়। বাস্তবতা বুঝে আপনাকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। ভালোবাসা নিয়ে অনেক অহংকার, অনেক বিশ্বাস আমাদের থাকে। ভালোবাসায় বিশ্বাস আমাদের থাকতেই হবে। কারন বিশ্বাসই ভালোবাসার মূলমন্ত্র। কিন্তু যখন এই মুলমন্ত্রটি নষ্ট হয়ে যায়, তার কষ্ট সহ্য করা একটা সাধারন মানুষের জন্য অনেক কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। তাই কারো সাথে ভালোবাসার সর্ম্পক থাকলে তাকে আগে যাচাই করে নিন। তার খারাপ দিক গুলো যথা সম্ভব খুঁজে বের করার চেষ্টা করুন। মনে রাখবেন সবারই ভালো মন্দ দিক থাকে। শুধু মাত্র আবেগের বশবর্তী হয়ে যদি কিছু করেন এবং তার ফলাফল যদি ভালো না হয় তাহলে তার দায়ভার শুধু মাত্রই আপনার।

অবশ্য আগের মতো একেবারে অজানা কারো সাথে বিয়ে এখন খুব কমই দেখা যায়, কারণ সময়টা এখন লাভ ম্যারেজ এর। যদিও বিয়ের আগে মাত্র দুই একবার কথা বলে পুরোজীবন এর জন্য সিদ্ধান্ত নেয়া আসলেই কঠিন, তাই নিজের জন্য যোগ্য সঙ্গী নির্বাচন করতে তার সম্পর্কে জেনে নিন উপরোক্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো।

কী ভাবছেন?

একজন অজানা মানুষ এর এত তথ্য যাচাই করা অনেক সময়ের ব্যাপার এবং ব্যায়বহুল তাই না?

চিন্তা নেই আপনার সময় ও খরচ বাঁচাতে humayra,com,bd চালু করেছে সম্পূর্ণ নতুন ধরণের একটি সার্ভিস যার নাম “গোয়েন্দা সেবা”
বাংলাদেশে humayra.com.bd ই প্রথম নিয়ে এসেছে বর পক্ষ এবং কনে পক্ষের জন্য গোয়েন্দা সেবা। এই সেবায় আপনার পরিচয় থাকবে সম্পূর্ণ গোপন। আপনার এই তথ্য যাচাইয়ের জন্য বিভিন্ন ক্যাটেগরিতে রয়েছে দক্ষ জনবল। প্রতিটি তথ্য যাচাইয়ের ক্ষেত্রে humayra.com.bd অনলাইন এবং মাঠ পর্যায়ে কাজ করে থাকে।
humayra.com.bd আপনার সবধরণের গোপনীয়তা রেখে, ৭ দিন, ১৫ দিন এবং ৩০ দিনের মধ্যে পাত্র কিংবা পাত্রী সম্পর্কে সম্পূর্ন রিপোর্ট প্রদান করে থাকে।
বিস্তারিত জানতে যোগাযোগ করতে পারেন: –

Website Link: www.humayra.com.bd

E-mail: humayrabd2019@gmail.com

Contact Number: +8801953336332

Shopping cart0
There are no products in the cart!
Continue shopping
0

Humayra

প্রিয় সম্মানিত গ্রাহক, আপনি ফরম পূরণের কিছুক্ষন পর, আমাদের একজন প্রতিনিধি আপনার সাথে যোগাযোগ করবে।

ওয়েডিং প্লানার: 01953336332, 01953311132 (WhatsApp)

Humayra Tours & Travels

প্রিয় সম্মানিত গ্রাহক, আপনি ফরম পূরণের কিছুক্ষন পর, আমাদের একজন প্রতিনিধি আপনার সাথে যোগাযোগ করবে।

যোগাযোগ: 01953336332, 01953311132 (WhatsApp)

Humayra

প্রিয় সম্মানিত গ্রাহক, আপনি ফরম পূরণের কিছুক্ষন পর, আমাদের একজন প্রতিনিধি আপনার সাথে যোগাযোগ করবে।

ওয়েডিং প্লানার: 01953336332, 01953311132 (WhatsApp)